তোকেই চাই হে কৃষ্ণকলি

আমার বাড়ির সামনে দিয়ে যখোন হেঁটে যাস্ তুই কাঁধে ঝুলিয়ে চকচকে ব্যাগ হাতে মোবাইল মনোহর বারান্দায় বসে আমি তখোন পলকহীন কাজল কালো নয়নে দেখি তোর পথ চলা ঘাড় ছুঁই ছুঁই লম্বা চুল তার ছন্দিত নাচন। আমার আকাশ ছিলো শান্ত তোকে … বিস্তারিত >

আত্মসমর্পণ

তোমার চুলের বনে হারিয়ে যাবো আজীবন রবো একা আমি লুকিয়ে শাড়ির আঁচলে রেখো চঞ্চল বায়ু দেহের পরতে রেখো যমুনার জল ঢেউয়ের তালে তালে ভেসে যাবো নিয়তির শেলাঘাতে আমি এক জিন্দালাশ । কাঁকনের রিনিঝিনি সুর তোলো ডাগর নয়নে মাখো মায়া কাজল … বিস্তারিত >

জবাব দিতে হবে

বিদগ্ধ মোর বঙ্গমাতা শুনবে কি গো আজ অভাগাদের কষ্ট গাথার করুণ আহাজারী! আজ মা তুমি সেজেছ কি এমনই বধির! রক্ত নেশা তোমার হয়েছে কি ভারি! রক্ত চাই তোমার – শুধু তাজা লহু ঝরে প্রাণ ঝরুক না, যতই হোক তা বহু! … বিস্তারিত >

কথা হবে নদীকূলে

বৃষ্টিভেজা বিকেলে কথা হবে তোমার সাথে ধানী রং শাড়ি পরে এসো তুমি দুহাতে কাঁচের চুড়ি কপালে মেরুন টিপ। কালো চুলে লাল ফুল গলায় পুঁতির মালা আলতা লাল চরণে সোনালী নুপুর এসো তুমি নদীকূলে তোমার সাথে কথা হবে নিরিবিলি গোধুলিবেলা। হরিণ … বিস্তারিত >

পাইনি ঠিকানা

কতটুকু শোভন শীতের আশ্রয় পেয়েছি সেথায় ভালবাসার পীটস্থান – ওই কবোষ্ণ বুকে? স্মৃতির মণিকোঠায় টানি মাণিক্যের ইতি খুঁজে খুঁজে হয়রান, ব্যথার বারিধি যায় ভেসে দুঃখের গহন নদ বহে প্রত্যাশার অগোচরে।   স্মিতোধরে অফুটা হাসির রেখায় দেখেছি কবে কবিতার সামিয়ানা তোমার … বিস্তারিত >

কিশোর রিকশাওয়ালা

সুন্দর মিয়া বহুদিন যাবত কঠিন রোগে ভুগছেন। ঠিকমত রিকশার প্যাডেলে পা দিতে পারেন না তিনি। থাকেন ফুলপুর বস্তিতে, এক ভাঙ্গা ঘরে। বৃষ্টি হলে দরদর করে পানি পড়ে। চৌকিখানি ভিজে একাকার হয়ে যায়। এমনই এক বৃষ্টির রাতে মাটিতে শুয়ে রাত কাটাতে … বিস্তারিত >

আরো একটি যুদ্ধ চাই – অরণ্য সৌরভ ও মনির খান

মাঝে মাঝে কেবল ভাবি একটি ফুলকে ভালবেসে , হয়তো আরো একটি যুদ্ধ হবে স্বাধীন দেশে স্বাধীনতার জন্য যুদ্ধ ! সে যুদ্ধ হবে অমানবতার বিরুদ্ধে মানবতার লড়াই। শোষণের বিরুদ্ধে ভোক্তার লড়াই। সে যুদ্ধে ঘটবে না কোন রক্তক্ষরণ রক্তে রঞ্জিত হবে না … বিস্তারিত >

কবিতায় সাধু ও চলতি রূপের মিশ্রণঃ

বন্ধুরা শুভেচ্ছা নিন। আলোচনার আসর ইদানিং বেশ কিছুদিন যাবত ঝিমিয়ে আছে! নতুন কোন আলোচনার সূত্রপাত না হলে আলোচনার আসর সরব হয় না। আর সাহিত্য বিষয়ক আলোচনা সরব না হলে আমরাও কিছু শিখতে পারি না। কাজেই, ভুল হোক শুদ্ধ হোক; একটা … বিস্তারিত >

আশার কদলী ভেলা

নিরাশার মরুতটে বেঁধেছিনু ঘর কুহকের মায়া ছলে, নিয়তি দেখেছি ভাগ্য নিয়ে হায় দিবা-নিশি জুয়া খেলে। কতকাল হেঁটে মিলেছে হিসাব গোধূলীর অকাল বেলায় বেদনার পাথর নাহি কো গলে শিশিরের সিক্ত ধারায়। হায়রে দিবসের আলোক দেখেগো ভুলেছি তামস রাতি ভাবিনি কখনো সুখের … বিস্তারিত >

তেঁতুল বীচির কারিশমা

কায়েস, সাত্তার, মেহদি, সুজন বরাবরই ছিলো ভালো ছাত্র। সাধারণ গৃহস্থ ঘরে জন্ম নিলেও মেধা ও নিষ্ঠায় কেউ কারো চেয়ে কম যায় না। ইউসূফগঞ্জ সরকারী প্রাথমিক ও উচ্চবিদ্যালয়ে একাধারে দশটি বছর এই চার বন্ধু ছিলো লেখাপড়ায় রত্ন বিশেষ। যেদিন বার্ষিক পরীক্ষার … বিস্তারিত >

সেচি স্বপ্ন সাগর

রাতের আকাশ জুড়ে বেদুইন তারা জ্বলে হিয়াপাশে আমি তার একা জেগে রই; হৃদয়ের কথা যত – বলি তারই সাথে। তারাগুলো ডুবে যায় তবু চাঁদ জেগে রয় প্রেয়সী বাতাস আছে আমাদের হাতে।   কুয়াশা চাদর মোড়া সময় যাতনা হরা দূরের সাগরে … বিস্তারিত >

খালি ঘরে একা

অনেক আশায় বেঁধেছি ঘর থাকবো তোমায় নিয়ে নিশিদিন একা ভরে দেবো মন হৃদয় আকুতি দিয়ে ।   হাওয়ায় চড়ে আসবে তুমি আমার শুন্য ঘরে তোমার সুরত ছড়াবে আলো হাজার বছর ধরে ।   আমরণ আমি কইবো কথা হৃদয়ে দেবো গো … বিস্তারিত >

ভাষা দৈন্যতার পরিনতি – দুই

আজ থেকে প্রায় তিনযুগ আগে – গত শতাব্দীর আশির দশকের কথা। কর্মোপলক্ষে রাজিব সাহেব প্রথমবারের মতো দক্ষিণ-কোরিয়া গেছেন। সে দেশের কৃষ্টি-সভ্যতা আর খাবার-দাবারের সাথে তাঁর বিন্দুমাত্র পরিচয়ও নেই। তখনো পর্যন্ত বাঙালীরা ভাগ্যান্বেষণে সে দেশে গিয়ে পৌঁছায়ওনি। বাঙালীর ঘরে জন্ম নিয়ে … বিস্তারিত >

সাধের স্বাধীনতা আমার

তোমার জন্য প্রতীক্ষার প্রহর কভু ফুরাবে না জানি, এখনো যে মাঠে দেখি শুধু হানাহানি? নিঝুম রাতের প্রহর জুড়ে আধোঘুম জাগরেণে শুনি – এ কি কানাকানি! এক বুক তৃষ্ণা নিয়ে চেয়ে আছি চাতক পাখীরই মত ইতিউতি খুঁজে ফিরি নীলিমার নীলে – … বিস্তারিত >

সেই মেয়েটি

প্রতিদিন তড়িঘড়ি পড়ন্ত বেলা গলির বুক মারিয়ে চুপচাপ হেঁটে যায় যে মেয়েটি কাঁধে তার রংচটা লাল ব্যাগ ডান হাতে ঘড়ি বাম হাতে সুর তোলা কাঁচের চুড়ি খাড়া নাকে নাকফুল ঝিলিক মারা । মেঘ কালো চুলে তার রূপালী কিলিপ থেকে থেকে … বিস্তারিত >