About মফিজুল ইসলাম খান

মফিজুল ইসলাম খান
পিতা-মৃত আব্দুল মন্নাফ খান । মাতা-সাফিয়া খাতুন । জন্ম- ০৪-০৯-১৯৫৪ । জন্মস্থান-ঘিলাতলী, বিবির বাজার, কুমিল্লা। শিক্ষাগত যোগ্যতা-এমকম,এলএলবি । একটি জাতীয়করণকৃত ব্যাংকের ডিজিএম (অবঃ)। বর্তমানে আইনজীবী । বসবাস-ঢাকায় । ইতিপূর্বে প্রকাশিত কবিতার বই-আন্দোলিত প্রান্তরে আহত চিৎকার, জোসনার ফুল, যন্ত্রণার অনুলিপি । ছড়ার বই-তাক ডুমাডুম ঢোল বাজে । ছড়া-কবিতার বই-আবোল তাবোল । উপন্যাস-মিসকল মফিজ । যৌথ- কবিতার বই-কোমল গান্ধার । যৌথ শিশুতোষ গ্রন্থ-খেঁকশিয়াল ফুলপরী ও বাজপাখীর গল্প ।

ঝলসানো মানবতা

ভোরের আবছা আলোয় বৃষ্টি ভোজা এক দল উপবাসী কাক গুলশানের এঁটো স্তুপে জ্বলে ওঠে হিংসায় কা কা রবে গগণ বিদারী প্রতিবাদ জানায় লাফিয়ে লাফিয়ে টোকা মারে বিধ্বস্ত কুমারী সখিনা বানুর মুন্ডিত মুন্ডে । আমল দেয় না কুমারী প্রতিবাদের ঝড় শুন্যে … বিস্তারিত >

যাবার ঠিকানা

অবাধ হাওয়া মাঝ রাতে নেশায় বিভোর চালকের বুকে ঢেউ তোলে সরাৎ সরাৎ ।   রসিক চালক চোখ বুজে নীলিমায় খোঁজে বলাকা যুগল ব্রেক ছিড়ে যায় । গন্ডা গন্ডা মৃত দেহ রাস্তার ধারে প্রহর কাটায় বেলা যায় ।   হাত পা … বিস্তারিত >

জলে ভেজা যৌবন

অবিরাম জলধারা শ্রাবণ দুপুর পাতায় পাতায় সুর ছন্দে ছন্দে খেলায় বিভোর সব গাছ গাছালি উতাল মাতাল মন ছলাৎ ছলাৎ নিঠুর বন্ধু তুই লুকালি কোথায়? ঠাঁটে ঠোঁটে চোখে চোখে চাতক চাতকী জলজ ভালোবাসায় একাকার সোনা বন্ধু আমার অভাগীরে একা ফেলে পরবাসে … বিস্তারিত >

সেই মেয়েটি

প্রতিদিন তড়িঘড়ি পড়ন্ত বেলা গলির বুক মাড়িয়ে চুপচাপ হেঁটে যায় যে মেয়েটি কাঁধে তার রংচটা লাল ব্যাগ ডান হাতে ঘড়ি বাম হাতে সুর তোলা কাঁচের চুড়ি খাড়া নাকে নাকফুল ঝিলিক মারা ।   মেঘ কালো চুলে তার রূপালী কিলিপ থেকে … বিস্তারিত >

দিওয়ানা

তুমি যদি পাখি হও আমি হবো নীলাকাশ আমার চাতালে তুমি উড়বে স্বাধীন থাকবে না ভয় ডর থাকবে না বাধা আমি তখোন কৃষ্ণ তুমি সখী রাধা । তুমি যদি বোট হও আমি হবো নদী তরতর বেগবান ঢেউয়ের তোড়ে ভেসে যাবে নিরবধি … বিস্তারিত >

তোকেই চাই হে কৃষ্ণকলি

আমার বাড়ির সামনে দিয়ে যখোন হেঁটে যাস্ তুই কাঁধে ঝুলিয়ে চক্চকে ব্যাগ হাতে মোবাইল মনোহর বারান্দায় বসে আমি তখোন পলকহীন কাজল কালো নয়নে দেখি তোর পথ চলা ঘাড় ছুঁই ছুঁই লম্বা চুল তার ছন্দিত নাচন । আমার আকাশ ছিলো শান্ত … বিস্তারিত >

কথা দাও যদি

সমুদয় সম্পদ স্থাবর অস্থাবর তোমাকেই দেবো সখি কথা দাও যদি প্রথম প্রহরে দেবো পৈত্রিক প্রাণ । যদি চাও ভালোবাসা হবো লীন মন মাঝারে তোমার সুন্দরীগো তুলবো প্রেমের ঝড় তরতর উতাল সাগরে হবো আজন্ম বিলীন । কথা দিয়ে কথা রাখা ধর্ম … বিস্তারিত >

জন্ম হবে কি সেই পুরুষের?

কি হচ্ছে এসব এই বাংলাদেশে যখন তখন ইচ্ছের ঘুড়ি উড়িয়ে ইচ্ছে মাফিক কখনো দিবালোকে কখনো সন্ধার মিয়ানো আঁধারে আবার কখনো বা গভীর রাতে কখনো জনসমুদ্রে কখনো নিরিবিলি বিবর্ণ মাঠের কোলে মরে যাওয়া নদীর কবরে গুম খুন বাসে ট্রাকে প্রকাশ্য গণধর্ষণ … বিস্তারিত >

রাজনীতি

রাজনীতি এক চতুর খেলা রক্তপাতহীন যুদ্ধ মনীষীরা বলেন এ যুদ্ধে হয় ক্ষমতার হাত বদল ধূর্ত শেয়ালের জয় ।   সঠিক হয় যদি মনীষীদের সংজ্ঞা তবে সত্যের উল্টো পথে কেনো হাঁটে রাজনীতি গলা ছেড়ে কেনো গায় গান পান্ডার দল ‘জ্বালিয়ে দাও … বিস্তারিত >

মায়ের অনুমতি

২০১১ এর প্রথম দিকে আমার মা অত্যন্ত অসুস্থ হয়ে পড়েন । বছরের শেষ দিকে তাঁর অবস্থা যখন মরণাপন্ন তখন আমার বড় ভাই মারা যান । তারপর থেকে কখনো একটু সুস্থ, কখনো একটু অসুস্থ এভাবেই মায়ের দিন কাটছিলো । এ অবস্থায়, … বিস্তারিত >

নদীর ভূবনে আমার হলো না যাওয়া

কাক ডাকা ভোর থেকে মধ্যরাত অনেক দূর ঁেহটেছি হেঁটে হেঁটে ক্লান্ত তবু যাওয়া হলো না নদীর ভূবনে ।   চাতাল পেরিয়ে কুয়া ক্ষয়ে যাওয়া এবরো থেবরো পাড় মাঝখানে ঝোপ জঙ্গলে ঢাকা দাদীর কবর ।   সামনে এগোলে পথ ডানে জলাশয় … বিস্তারিত >

তুমিতো এলে না

কতোদিন খুঁজেছি তোমায় ভালোবাসার সবুজ বৃত্তে কতো রাত কেটেছে ব্যাকুল তোমার পথ পানে চাহিয়া কতো রাত কতো দিন এঁকে দিতে চেয়েছি গোলাপ তোমার নূরানী পায়ে। জীবন পথের আঁকে বাঁকে কতোকাল ডেকেছি তোমায় হাত তুলে আকাশে লাল পতাকা উড়িয়ে তুমি সরে … বিস্তারিত >

বুঝলো না কেউ

মনের দুঃখ আমি কারে বলি কারে দেই তার ভাগ বুঝলো না কেউ জ্বলে পুড়ে ছারখার তৃষিত হৃদয় জল দিলেও নেভে না এই অনলের ঢেউ। বুকের রক্ত মাখা প্রেম ভালোবাসা বিলিয়ে দিয়েছি সব পৃথিবীর বুকে সুখের খবর তবু ভাসে না বাতাসে … বিস্তারিত >

বোশেখ তোমার কাছে নতজানু

হাসপাতাল থেকে ছাড়া পেয়ে এগারো ঘাটে পেরিয়ে আবার এসেছি আমার কুঁড়ে ঘরে তোমাকে সালাম হে বোশেখ তোমাকে সালাম ধ্বংসের অগ্নিকুন্ডে তুমিই মহারা । তোমার শরীর জুড়ে ইবলিসের আস্তানা হাতি মারো না ঘোড়া মারো না রাজা উজির রাজকুমারের রংমহলে বাড়াও না … বিস্তারিত >

অজাত পদ্ম

কূল নাই কিনার নাই জীবন নদীর জলে চল্ছি ভেসে অবিরাম আমি এক নামহীন অজাত পদ্ম। আমার এবড়ো থেবড়ো দেহ বিষের অনলে পোড়া দগদগে কপাল। নদীর এ পারে কাঁটা ওপারে বিষের শুল ওঁৎ পেতে আছে হায়েনার মতো কাছে পেলেই ছিন্নভিন্ন করে … বিস্তারিত >