কামারুজ্জামান কি সত্যিই ন্যায় বিচার পেয়েছেন?

1779 জন পড়েছেন

গত কাল (এপ্রিল ১১, ২০১৫, শনিবার) রাত সাড়ে ১০ টায় মানবতাবিরোধী অপরাধে দণ্ডিত জামায়াতে ইসলামীর সিনিয়র সহকারী সেক্রেটারি জেনারেল মুহাম্মদ কামারুজ্জামানের ফাঁসি কার্যকর করে রবিবার সকালে র‌্যাব-পুলিশ পাহারায় কঠোর নিরাপত্তার মধ্য দিয়ে মরদেহ শেরপরে নিজ গ্রামে নিয়ে যাওয়া হয়। শেষ ইচ্ছা অনুযায়ী আজ রোববার ভোরে ফজরের নামাজের পর সদর উপজেলার কুমরী মুদিপাড়ায় কামারুজ্জামানের প্রিতিষ্ঠিত বাজিতখিলা এতিমখানা মাদ্রাসার পাশে তাকে দাফন করা হয়।

Qamaruzzaman’s family members visited him for the last time in Dhaka’s Central Jail [Getty Images]

 

তবে কামারুজ্জামান ন্যায় বিচার পেয়েছেন কিনা তা নিয়ে বিভিন্ন মহলে প্রশ্ন উঠেছে । বাংলাদেশে সরকার নিয়ন্ত্রিত মিডিয়াতে না হলেও সামাজিক মিডিয়াতে ব্যপক সমালোচনা হচ্ছে।

১) কামারুজ্জামান সম্পর্কে লেখিক মিনা ফারাহ তার ফেসবুক স্ট্যাটাসে লিখেন, তিনি শেরপুরের মেয়ে, ১৯৮০ সাল পর্যন্ত শেরপুরেই ছিলেন, আজ ১৯ বছর পর জানতে পারলেন, কামরুজ্জামান এক বিরাট ধর্ষক। এটা যদি সত্যিই হত তাহলে তাহলে আমার দেশের বাড়ি শেরপুরে শুধু ধর্ষিতা নারী আর বিধবা থাকত।
ফেসবুক ষ্ট্যাটাসে তিনি তুহিন আফরোজকে শেরপুরে গিয়ে ধর্ষিতাদের সাথে সরাসরি কথা বলতে বলেন। ধর্ষন ধর্ষণ শুনতে শুনতে কান ঝালাপালা হয়ে গেছে , তুরিন আফরোজ তো একজন মেয়ে মানুষ, তার তো জানা উচিৎ ধর্ষণ কি, এটা কোন আমের আচার নয়।
কামরুজ্জামানের সম্পর্কে আনীত অভিযোগ যদি সত্যিই হত, একজন শেরপুরের মেয়ে হিসাবে আমিই ট্রাইবুলান গঠন হবার আগেই বিচার চাইতাম। তুরিন আফরোজ যে কাজ পেয়েছে, সে কাজের যোগ্য সে নয়। তিনি বলেন, আমার স্ট্যাটাস নিয়ে ট্রাইবুন্যালকে দেখাও, আমি পরোয়া করিনা, কারন যারাই সত্য কথা তাদেরকেই তারা সহ্য করতে পারে না ।

২) যুদ্ধাপরাধের বিচার ব্যবস্থা ত্রুটিপূর্ণ  কিনা জানতে এখানে শুনুন।

পরিশেষে একথা বলা যায় যুদ্ধাপরাধের বিচার বা মানবতাবিরোধী অপরাধের বিচার সবারই কাম্য। তবে সে আবেগ আজ আমাদের বেশ কিছু মানুষের বিবেককে এতটা অন্ধ করে ফেলেছে যে তাদের চোখের সামনে অন্যায় অত্যাচার বা আইনের খেলাপ হচ্ছে  তারা তা দেখতে রাজি নয়!

Facebook Comments

1779 জন পড়েছেন

উড়ন্ত পাখি

About উড়ন্ত পাখি

আমি কোন লেখক বা সাংবাদিক নই। অর্ন্তজালে ঘুরে বেড়াই আর যখন যা ভাল লাগে তা সবার সাথে শেয়ার করতে চাই।