“দ্যা লাইট অব কোরআন” এর শত তম সাপ্তাহকি কোরআন প্রোগ্রাম উদযাপতি

1856 জন পড়েছেন

নূর-এ-আজাদ
কোপেনহেগেন, ডেনমার্ক
রববিার, ১৯ ফব্রেুয়ারী ২০১২

কোপেনহেগেনে(ডেনমার্ক) বসবাসরত প্রায় দুই শত বাংলাদেশী মুসলমান ভাই-বোনের উপস্থিতিতে “দ্যা লাইট অব কোরআন” এর শত তম সাপ্তাহিক কোরআন প্রোগ্রাম গত ১৮ ফেব্রুয়ারী রোজ শনিবার রাত ৮টা ১০ মিনিটে নরেব্রোস্থ মিনহাজুল কোরআন মসজিদে সম্পন্ন হয়েছে। অনুষ্ঠানে আমন্ত্রিত অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন ড. নাদিম আসিম মোহাম্মদ, ডেনিস নও মুসলিম যুবক জনাব আবদেল করিম স্ট্রেইনজ এবং কানাডা প্রবাসী ইসলামের অমীয় বাণী প্রচারক জনাব মোহাম্মদ শমশের আলী হেলাল প্রমুখ। স্বাগত বক্তব্য রাখেন অর্গানাইজেশনের আইটি এ্যান্ড ডেভোলাপমেন্ট সেক্রেটারী জনাব মোফাস্সল হোসেন মিঠু এবং প্রোগ্রাম পরিচালনা করার জন্য সেক্রেটারী জেনারেল জনাব ফেরদৌস বাশারকে আহবান জানান।

প্রথমে অনুষ্ঠানে কোরআন তেলাওয়াত এবং তরজমা করেন জনাব অলি উল্লাহ। “In the Sight of Allah (swt) and His Messenger/s (saws) why the Muslim world is in a crisis we observe these decades? In such a situation do I really have any duty to contribute recovering the situation? If yes, what might they be in the Sight of Allah (swt) and His Messenger/s (saws)? ” -এই বিষয়ের উপর গুরুত্বপূর্ণ বক্তব্য প্রদান রাখেন ড. নাদিম আসিম মোহাম্মদ। এরপর বক্তব্য প্রদান করেন জনাব আবদেল করিম স্ট্রেইনজ। তিনি “Why and how did he find Islam as the only accepted way of life to Allah (swt) and how would he suggest a Muslim who is a Muslim not by choice but by birth?” – বিষয়ের উপর বক্তব্য রাখেন। যারা জন্মগত মুসলমান, উনার বক্তব্য তাদেরকে ইসলামের ব্যাপারে নতুনভাবে চিন্তা করার অনুপ্রেরনা দিবে।

অর্গানাইজেশনের ইভেন্ট ম্যানেজমেন্ট সেক্রেটারী জনাব আলমগীর হোসেন ” কেন আমার সালাত আদায় করা উচিৎ”বিষয়ের উপর উনার নিজস্ব গবেষনা লব্ধ লিখা উপস্থাপন করেন। তিনি তার বক্তব্যে বলেন, আমরা সবাই কম বেশী নামাজ পড়ি। কিন্ত নামাজের মধ্যেযে সুরা এবং দোয়া আমরা পড়ি তা বুঝিনা, বুঝার প্রয়োজন বোধ করিনা এমনকি চেষ্টাও করিনা। যার কারনে নামাজ পড়ার পরও কোরআনের কথা অনুযায়ী আমাদের মধ্যে যে ধরনের পরিবর্তন আসার কথা ছিল তা আসছেনা। যার ফলে আমরা নামাজ পড়ছি কিন্তঅসুন্দর জিনিস গুলো আমাদের উপর চেপে বসে আছে। পানিকে দূষন মুক্ত করার জন্য আমরা যেমন ফিল্টারিং এর সহায়তা নেই ঠিক একইভাবে নামাজ আমাদের মধ্য হতে ক্ষতিকর আত্মিক ও ব্যবহারিক বিষয়াদিকে ফিল্টারিং করে, অসুন্দর জিনিসগুলোকে পরিশোধিতকরে। আর আল্লাহর এই উত্তম উপহার নামাজের উপর উনার উপস্থাপনা বিমূর্ত হয়ে ফুটে উঠে।

[youtube]http://www.youtube.com/watch?v=fRl9tIkSB0Y[/youtube]

গীবত যে একটা মারাত্বক গুনাহের কাজ যা আমরা অনেকে ভালভাবে জানার পরেও অনেকটা প্রতিযোগীতার ভিত্তিতেগীবত করে বেড়াইযার ফলে আমাদের সমাজের ভ্রাত্তিত্বের বন্ধন নষ্ট হচ্ছে। কোরআন-হাদীসের আলোকে গীবত যে একটি সামাজিক ব্যাধি, এড়ুকেশন এ্যান্ডট্রেনিং সেক্রেটারী জনাব রাকিবুল ইসলাম আল-আজহারীর বক্তব্যের মাধ্যমে চমৎকারভাবে উপস্থাপিত হয়। এছাড়া কানাডা প্রবাসী ইসলামের অমীয় বাণী প্রচারক জনাব মোহাম্মদ শমশের আলী হেলাল, “আমাদের জীবনে সূরা ফাতিহার প্রথমআয়াতের গুরুত্ব” এই বিষয়ের উপর বহুবিদ জীবন ঘনিষ্ঠ উদাহরনের অবতারনা করে উনার আলোচনা উপস্থাপন করেন।জন্মগতভাবে মুসলমান হওয়া সত্বেও উনি ইসলামের ছায়াতলে আসেন কানাডার এক মসজিদের ইমাম জনাব আব্দুল হাকিমের বক্তব্য শুনে – যে ইমাম কারাগারে মুসলমান হন। জনাব হেলাল আমাদের প্রাত্যহিক জীবনের উদাহরণ টেনে এনে ফ্যাক্টস, ফিগার ও যুক্তির অবতারনা করে – উপস্থিত সকল শ্রোতাকে ইসলামের অমীয় বানী আস্বাদন করতে সমর্থ হন।

[youtube]http://www.youtube.com/watch?v=rRL1yeYb924[/youtube]

মুসলমান হিসেবে আমাদের আচার ব্যবহার কি রকম হওয়া উচিৎ, একজন স্বামী হিসেবে, একজন স্ত্রী হিসেবে, একজন প্রতিবেশী হিসেবে,একজন সহকর্মী হিসবে এবং একজন পথচারী হিসেবে আমাদের আচার ব্যবহার কেমন হওয়া উচিৎ উনার বক্তব্যে ফুটে উঠে। উনারবক্তব্যের মধ্যে বিশেষভাবে লক্ষ্য করা যায় যে, আল্লাহ রাব্বুল আলামীন আমাদের কতপ্রকার নেয়ামত কোন রূপ প্রতিদান ছাড়া প্রদান করেছেন। অথচ আমরা তা জেনেও যথাযথ শুকরিয়া আদায় করছিনা করতে পারছিনা। যা কিনা মুসলিম হিসেবে গ্রহনযোগ্য নয়।

জনাব রাকিবুল ইসলাম আল-আজহারী এর হামদ এবং জনাব আলমগীর হোসেনের স্ব-রচিত ইসলামী ফোক গানের মধ্যে অনেক ম্যাসেজ লুকাইত ছিল যা সকলের পাতেয় হিসেবে কাজ করবে। উক্ত গানগুলো উপস্থিত ভাই-বোনেরা ভিন্নকিছুর স্বাদ গ্রহন করেন। সর্বশেষ বক্তা হিসেবে বক্তব্য রাখেন অর্গানাইজেশনের প্রেসিডেন্ট জনাব মিজবাহ উদ্দীন চেীধুরী। তিনি অর্গানাইজেশনের লক্ষ্য-উদ্দেশ্য এবং বর্তমান ও ভবিষ্যতের পরিকল্পনাগুলো ব্যক্ত করেন এবং উপস্থিত অনুপস্থিত সবাইকে আর্থিক ও শারীরিকভাবে সহযোগীতার জন্য ধন্যবাদ জানিয়ে উনার বক্তব্য শেষ করেন।

পরিশেষে, মোহাম্মদ শমশের আলী হেলাল অশ্রুশিক্ত চোখে দোয়া পরিচালনা করেন এবং উপস্থিত সবাই রাতের খাবার গ্রহনের মধ্য দিয়ে প্রোগ্রাম শেষ হয়।

প্রোগ্রামটির সম্পুর্ন ভিডিও এবং mp3 ফরমেট দ্যা লাইট অব কোরান -এর ওয়েবসাইট www.thelightofquran.org-এ আছে যা আপনারা দেখলে এবং শুনলে অনেকের উপকার আসতে পারে।

উল্লেখ্য যে, দ্যা লাইট অব কোরান মূলতঃ ডেনমার্কস্থ কিছু প্রবাসী বাংলাদেশী ভাই ও বোনের উদ্যোগে প্রতিষ্ঠিত একটি ধর্মীয় অর্গানাইজেশন, যার মূল উদ্দেশ্য হল কোরআন ও হাদীসের আলোকে ইসলামকে বোঝার ও জানার চেষ্টা করা এবং পাশাপাশি অন্যদেরকেও বোঝানোর চেষ্টা করা। এই জন্যে প্রতি সপ্তাহের রবিবার বিকাল ৪টায় আগ্রহী ভাই-বোনেরা স্বেচ্ছায় নরেব্রোস্থ মিনহাজুল কোরান মসজিদে সমবেত হন এবং বিভিন্ন কর্মকান্ড পরিচালনা করেন।

1856 জন পড়েছেন

Comments

“দ্যা লাইট অব কোরআন” এর শত তম সাপ্তাহকি কোরআন প্রোগ্রাম উদযাপতি — ১ Comment

  1. ধন্যবাদ ভাই, অত্যন্ত ভাল লাগল ডেনমার্কের মত দেশে ইসলামের উপর এরকম একটি উন্নতমানের অনুষ্টান করার খবর দেয়ায় আর আপনি কষ্ট করে যে সে অনুষ্টানের বর্ণনা দিয়ে সংলাপব্লগে লিখেছেন সে জন্য আপনাকে অশেষ ধন্যবাদ। দোয়া করি মহান আল্লাহ আপনাদের এ উত্তম প্রচেষ্টা কবুল করুন।