আবারো ইউল্যাব ছাত্রদের দ্বারা যৌন নিপীড়নঃ প্রতিবাদকারীকে মারধর ।

2637 জন পড়েছেন

জানা ঘটনা-০৩ ।

ইউল্যাব (ইউনিভার্সিটি অব লিবারেল আর্টস) এর একদল ছাত্র ১০মে ২০১২ তারিখ রাতে ইউল্যাব-এর পাশে ধানমন্ডী ৫/এ রোডে একজন মহিলাকে যৌন নিপীড়ন করেছ। পাশেই পুলিশের চেকপোষ্ট। তারা এগিয়ে আসেনি। হয়তো তারা অন্য কাজে ব্যস্ত ছিল। দেখতে পায়নি। তবে আশেপাশের দোকানদার ও ছাত্র শিক্ষকদের গাড়ি চালকগণ দেখেছে। কিন্তু তারা কোন প্রতিবাদ করেনি। একজন সদাশয় ব্যক্তি এগিয়ে এসে প্রতিবাদ করেছিলেন। আর সঙ্গে সঙ্গে ঐ ছাত্ররা তাকে ইউল্যাবের দিকে টেনে নিয়ে বেদম মার দিয়েছে। পরবর্তিতে বিভিন্নজনের জিজ্ঞাসাবাদে প্রত্যক্ষদর্শী আশেপাশের দোকানদার ও উপস্থিত গাড়ি চালকগণ বয়ান দিয়েছে যে, রাস্তাঘাটে এমন ঘটনা ঘটতেই পারে, তিনি কেন প্রতিবাদ করতে গেলেন? এতে বুঝা যায় যে, তারাও যৌন নিপীড়নকারী। অপরাধী ছাত্রদের সাথে তারাও অপরাধী এবং তাদেরও বিচার হওয়া উচিৎ। ইউল্যাব কর্তৃপক্ষ খবরের কাগজকে জানিয়েছে যে, অভিযুক্ত ছাত্ররা ইউল্যাবের ছাত্র কিনা সে বিষয়ে কোন প্রমাণ পাওয়া যায়নি। তাদের এ বক্তব্য ঠিক নয়। প্রত্যক্ষদর্শী আশেপাশের দোকানদার ও উপস্থিত গাড়ি চালকগণকে পেদানী দিলেই অভিযুক্ত ছাত্রদের সহজেই সনাক্ত করা সম্ভব।

জানা ঘটনা-০২ ।

একজন শিক্ষক ফেসবুকে জানিয়েছেন যে, ০৫ মে ইউল্যাবের পাশ থেকে ইউল্যাবের ছাত্ররা তার মোবাইল ফোন ছিনতাই করেছে।

জানা ঘটনা-০১ ।

মাস খানেক আগে শাহবাগ ট্রাফিক আইল্যান্ডের পাশে ফুল দোকানগুলির সামনে একটি লোকাল বাসে ইউল্যাবেরই একদল ছাত্র একটি মেয়েকে যৌন নিপীড়ন করছিল। ঐ বাসটি মোহাম্মদপুর থেকে রামপুরা বনশ্রী যাতায়ত করে থাকে। ঐদিন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ১ম বর্ষের একজন ছাত্র বনশ্রী যাওয়ার জন্য শাহবাগ মোড়ে ঐ বাসে ওঠে। ওঠার পর সে দেখলো যে, ইউল্যাবের ছাত্ররা মেয়েটিকে যৌন নিপীড়ন করছে। তখন সে বিবেকের তাড়নায় প্রতিবাদ করে। সঙ্গে সঙ্গে ঐ ছাত্ররা তাকে নানাভাবে বেদম মারপিট করে। তার মাথায়, বুকে, পিঠে, পেটে মারাত্মক আঘাত করে, মাথা থেতলে দেয়। তার নাক মুখ দিয়ে রক্ত বেরুতে থাকে। তারপর আধ মরা অবস্থায় বাস থেকে ছুড়ে ফেলে দেয়। বাসটি চলে যায়। একজন ফুল দোকানী তাকে ভ্যানে করে হাসপাতালে নিয়ে যায়। ৩/৪দিন সে সিসিইউতে অজ্ঞান ছিল। বাঁচার কথা ছিল না। তার একটি কিডনি নষ্ট হয়ে যায়। যাহোক আল্লাহ তাকে বাঁচিয়ে দিয়েছেন। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রদের কাছে ইউল্যাব কর্তৃপক্ষ স্বীকার করেছে যে, তাদের ছাত্ররাই এ কাজ করেছে। তারা ঐ সব ছাত্রের নামধাম গোপন রেখে বলেছিল যে, তারা প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করবে এবং চিকিৎসা খরচ বহন করবে।  কিন্তু তারা কিছুই করেনি । তারাই ঐ সব অপরাধী ছাত্রদেরকে লালন পালন করছে।

 

ইউল্যাব একটি থার্ড ক্লাস বেসরকারী বিশ্ববিদ্যালয়। সরকারী বা ভাল বেসরকারী বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি হতে না পেরে এখানে কিছু সংখ্যক মধ্যমানের ছাত্র ভর্তি হয়। বাকী যারা ভর্তি হয় তারা সবাই পঁচা গান্ধা নষ্ট মেধাহীন। টাকার জোরে ভর্তি হয়, টাকার জোরে সনদ কেনে। নষ্ট অভিভাবকদের নষ্ট ছেলেরাই দিনের পর দিন নষ্টামি করে যাচ্ছে এবং ইউল্যাব কর্তৃপক্ষ তাদের সহায়তা দিচ্ছে, আশ্রয় প্রশ্রয় দিচ্ছে। তারা জানে কারা এ সব করছে। কিন্তু কোন ব্যবস্থা নিচ্ছে না।

 

বিবেকবানদের নিকট আহবান জানাই, দয়া করে আসুন, সোচ্চার হই, প্রতিবাদ করি, প্রতিরোধ গড়ে তোলার ব্যবস্থা নেই। তাদের গ্রাস থেকে মা বোন বউ ছেলেমেয়েদের রক্ষা করি।

2637 জন পড়েছেন

About মফিজুল ইসলাম খান

মফিজুল ইসলাম খান পিতা-মৃত আব্দুল মন্নাফ খান । মাতা-সাফিয়া খাতুন । জন্ম- ০৪-০৯-১৯৫৪ । জন্মস্থান-ঘিলাতলী, বিবির বাজার, কুমিল্লা। শিক্ষাগত যোগ্যতা-এমকম,এলএলবি । একটি জাতীয়করণকৃত ব্যাংকের ডিজিএম (অবঃ)। বর্তমানে আইনজীবী । বসবাস-ঢাকায় । ইতিপূর্বে প্রকাশিত কবিতার বই-আন্দোলিত প্রান্তরে আহত চিৎকার, জোসনার ফুল, যন্ত্রণার অনুলিপি । ছড়ার বই-তাক ডুমাডুম ঢোল বাজে । ছড়া-কবিতার বই-আবোল তাবোল । উপন্যাস-মিসকল মফিজ । যৌথ- কবিতার বই-কোমল গান্ধার । যৌথ শিশুতোষ গ্রন্থ-খেঁকশিয়াল ফুলপরী ও বাজপাখীর গল্প ।

Comments

আবারো ইউল্যাব ছাত্রদের দ্বারা যৌন নিপীড়নঃ প্রতিবাদকারীকে মারধর । — ১ Comment

  1. ভাই, সালাম। প্রথম প্যারাগ্রাফ পড়ার পর আর পড়তে পারিনি। দেশ ও সমাজের নৈতিক অবস্থা এতই নিম্নে চলে গিয়েছে যে ভাবতেই বিব্রতি আসছে।

    এ লেখাটি পোষ্ট করে অনেক ভাল কাজ করেছেন। আল্লাহ আপনাকে পুরষ্কার দান করুন।