ধর্ষণ সম্পর্কিত একটি হাদিস

60 জন পড়েছেন

|| ধর্ষণ || এইমাত্র ধর্ষণ সম্পর্কিত একটি হাদিসের বাংলা অনুবাদ করে দিলাম। অনুবাদটি এখানেও দিচ্ছি কেননা অন্যরাও পাঠ করলে জানার মাত্রা বৃদ্ধি হতে পারে।

হাদিস: আলকামা বিন ওয়াইল তার পিতা থেকে বর্ণনা করেন। এক মহিলা [ফজরের] নামাজের জন্য বের হলে একজন পুরুষ তার সাথে মিলিত হল। লোকটি  তার জামা মহিলার উপর ছুঁড়ে দিয়ে তাকে কাবু করে নিল। তারপর তার প্রয়োজন মেটাল (অর্থাৎ তাকে ধর্ষণ করল), তারপর চলে গেল। তারপর ওখানে আরেক ব্যক্তি আসল। মহিলাটি তাকে বললেন, ‘ঐ ব্যক্তি আমার সাথে এটা এটা করেছে’ (অর্থাৎ ধর্ষণ করেছে)। লোকটি তখন সেই লোকের খুঁজে ছুটল। তারপর (মদিনাবাসী) আনসারদের কিছু লোক সেই মহিলার নিকটে গিয়ে হাজির হল। মহিলা তাদেরকে বললেন,  ‘একটি লোক আমার সাথে এটা এটা করেছে’ (অর্থাৎ ধর্ষণ করেছে)। তারপর তারাও সেই লোকের সন্ধানে ছুটে গেল এবং সেই ব্যক্তিকেই পাকড়াও করে নিয়ে এল যে ব্যক্তিটি আগে ধর্ষকের সন্ধানে ছুটে গিয়েছিল। তারা তাকে নবীর (সা) কাছে নিয়ে গেল। সেখানে মহিলাটি বলল, ‘এ’ই সেই লোক’ (অর্থাৎ ধর্ষক)। তারপর, নবী যখন তাকে পাথর মেরে হত্যা করার নির্দেশ দিলেন, তখন যে ব্যক্তি (মহিলাকে মূলত) ধর্ষণ করেছিল সে বলল, ‘ইয়া রাসূলাল্লাহ, আল্লাহর শপথ আমিই সেই ব্যক্তি।’ তারপর, নবী (সা) মহিলাকে লক্ষ্য করে বললেন, ‘আল্লাহ তোমাকে মাফ করুন, তুমি চলে যাও’, এবং (অভিযুক্ত) ব্যক্তিকে লক্ষ্য করে কিছু ভাল কথা বললেন [তাকে সান্ত্বনা দিতে, কেননা তাকে তো মৃত্যুর দ্বারপ্রান্তে ঠেলে দেয়া হয়েছিল]। তারপর  (উপস্থিতদের কাছ থেকে) নবীকে (সা) লক্ষ্য করে বলা হল, ‘হে আল্লাহর নবী, আপনি কি তাকে পাথর মেরে হত্যা করবেন না?’ তিনি উত্তর দিলেন, ‘এই ব্যক্তি এমন তওবা করেছে যে এই তওবা যদি গোটা মদিনাবাসীও করত, তবে তাদের কাছ থেকে তা গৃহীত হত।’   ইবন আয-যুবাইর বলেন যে দোষ-স্বীকার-করা লোকটির উপর ‘হদ’ (শাস্তি) প্রয়োগ করা হয় নি, এবং এই (না-হওয়ার) বর্ণনাটিই সঠিক। আসবাত বিন নাসর সাম্মাক (বিন হারব) থেকেও অনুরূপ বর্ণনা করেন –একই ভাষ্যে (وقد صرح ابن الزبير عن سماك بأن الحد لم يقم على المعترف, وهو الصواب, قد رواه أسباط بن نصر عن سماك بمثله, ولفظه) (তবে সেই বর্ণনায় ওমর (রা) রাসূলুল্লাহকে দোষ স্বীকার-করা লোকটিকে শাস্তি দিতে বলেন, কিন্তু নবী (সা) সেটা করতে যান নি, বরং উপরোক্ত কথাই বলেন)।   

সূত্র: নাসির উদ্দিন আল-আলবানি, (১৯৯৫), সিলসিলাতুল আহাদিস আস-সাহিহাহ, (২য় খন্ড), রিয়াদ: মাক্তাবতুল মাআরিফ লিন-নাশরি ওয়াত তাওযি, পৃষ্ঠা ৫৬৭-৫৬৮।  

উল্লেখিত বর্ণনার শেষাংশে আলবানি মন্তব্য করেন, ‘এই হাদিসে গুরুত্বপূর্ণ উপকার রয়েছে। আর তা হল এই যে যে ব্যক্তি উত্তমভাবে তওবা করবে তার উপর থেকে হদ্দের শাস্তি অপসারিত হবে। এই অভিমত ইবন কাইয়্যেম তার গবেষণা ‘আল-ইলামে’ ব্যক্ত করেন। দেখুন ৩/১৭-২০,  সাআদাহ প্রেস (قلت: وفي هذا الحديث فائدة هامة، وهي أن الحد يسقط عمن تاب توبة صحيحة وإليه ذهب ابن القيم في بحث له في ” الإعلام ” فراجعه (30 / 17 – 20 مطبعة السعادة)’।   (প্রাগুক্ত, পৃ. ৫৬৮)।  

এই হাদিসটি ইমাম আহমদ, আবু দাউদ ও তিরমিযি বর্ণনা করেন।  
 
আরবি টেক্সট: خرَجَتِ امرأةٌ إلى الصَّلاةِ، فلَقِيَها رجلٌ، فتجَلَّلَها بثيابِه، فقَضَى حاجتَه منها، وذهَبَ، وانتهَى إليها رجُلٌ، فقالَتْ له: إنَّ الرجُلَ فعَلَ بي كذا وكذا، فذَهَبَ الرجُلُ في طَلَبِه، فانتهَى إليها قومٌ من الأنصار، فوَقَفوا عليها، فقالَتْ لهم: إنَّ رجُلًا فعَلَ بي كذا وكذا، فذَهَبوا في طلبِه، فجاؤوا بالرجُلِ الذي ذهَبَ في طَلَبِ الرجُلِ الذي وقَعَ عليها، فذَهَبوا به إلى النَّبيِّ صلَّى اللهُ عليه وسلَّمَ، فقالَتْ: هو هذا، فلمَّا أمَرَ النَّبيُّ صلَّى اللهُ عليه وسلَّمَ برَجْمِه، قالَ الذي وقَعَ عليها: يا رسولَ اللهِ، أنا واللهِ هُوَ، فقالَ للمرأةِ: اذهَبي، فقدْ غَفَرَ اللهُ لكِ، وقالَ للرجُلِ قولًا حَسَنًا، فقيلَ: يا نَبيَّ اللهِ، ألَا تَرْجُمُه؟ فقالَ: لقدْ تابَ توبةً لو تابَها أهلُ المدينةِ، لقُبِلَ منهُمْ.

আলবানির পুস্তকের ইন্টারনেট লিঙ্ক

Facebook Comments

60 জন পড়েছেন

About এম_আহমদ

প্রাবন্ধিক, গবেষক (সমাজ বিজ্ঞান), ভাষাতত্ত্ব, ধর্ম, দর্শন ও ইতিহাসের পাঠক।

Comments are closed.